করোনা মোকাবেলা একটি যুদ্ধ, এই যুদ্ধে ঘরে থাকুন: প্রধানমন্ত্রী

প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাসে আতঙ্কিত না হয়ে দেশবাসীকে ঘরে থাকার আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেছেন, ‘বাংলাদেশের মানুষ ৭১ সালে কাধে কাঁধ মিলে যুদ্ধ করেছে। করোনা ভাইরাস মোকাবেলাও একটি যুদ্ধ। তাই এই যুদ্ধে ঘরে থাকাই জনগণের দায়িত্ব।’

বুধবার (২৫ মার্চ) জাতির উদ্দেশ্যে দেয়া এক ভাষণে এ নির্দেশ দেন প্রধানমন্ত্রী।

একই সঙ্গে করোনা ভাইরাসের বিস্তার রোধে মুসলমানদের ঘরেই নামাজ আদায়ের অনুরোধ জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। অন্যান্য ধর্মাবলম্বীদেরও ঘরে বসে প্রার্থনা করার অনুরোধ জানান তিনি।

শেখ হাসিনার কথায়, ‘মাত্র ১৪দিন আলাদা থাকুন। আপনার পরিবার, পাড়া-প্রতিবেশী, এলাকাবাসী ও সর্বোপরি দেশের মানুষের জীবন বাঁচানোর জন্য এসব নির্দেশনা মেনে চলা প্রয়োজন। যতদূর সম্ভব ঘরে থাকবেন। অতি প্রয়োজন ছাড়া ঘরের বাইরে যাবেন না। বাইরে জরুরি কাজ সেরে বাড়িতে থাকুন।’

আতঙ্কিত না হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন সরকার প্রধান। তিনি মনে করেন, ‘আতঙ্ক মানুষের যৌক্তিক চিন্তাভাবনার বিলোপ ঘটায়। সবসময় খেয়াল রাখুন আপনি, আপনার পরিবারের সদস্য ও প্রতিবেশীরা যেন সংক্রমিত না হয়। আপনার সচেতনতা আপনাকে, আপনার পরিবারকে ও সর্বোপরি দেশের মানুষকে সুরক্ষিত রাখবে।’

এর আগে সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় করোনা ভাইরাসের সংক্রমণে সরকারের নেওয়া পদক্ষেপ ও প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি তুলে ধরতে গণভবন থেকে  জাতির উদ্দেশ্যে ভাষণ দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

বাংলাদেশ টেলিভিশন, বেতারসহ দেশের সবগুলো টেলিভিশন চ্যানেল প্রধানমন্ত্রীর ভাষণ সরাসরি সম্প্রচার করে। এছাড়াও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে তাঁর ভাষণ সম্প্রচার হয়।

জাতির উদ্দেশে দেয়া ভাষণে প্রধানমন্ত্রী বিশ্ব জুড়ে আতঙ্ক ছড়ানো করোনা ভাইরাস নিয়ে দিকনির্দেশনা দেন।

এর আগে গত ১৭ মার্চ মুজিব বর্ষের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এর আগে টানা তৃতীয় মেয়াদে সরকার গঠনের পর দায়িত্ব গ্রহণের এক বছর পূর্তিতে ৭ জানুয়ারি জাতির উদ্দেশে ভাষণ দিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী। এ নিয়ে চলতি বছরে ২৫ মার্চের ভাষণ হবে তার তৃতীয় ভাষণ।